• বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ঈদগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩টি পদে মোট ১৭জনের মনোনয়নপত্র দাখিল লাঞ্ছিত জীবনগাঁথা ঈদগাঁওতে ডিসি ও এস পি, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে ঈদগাঁওতে নতুন পুরাতন প্রার্থীদের দৌঁড় ঝাঁপ ইয়াবা ও দালালীর জাদুতে আলাদীনের চেরাগপ্রাপ্ত কথিত সাংবাদিক নেতা কেতারা কি আইনের উর্ধ্বে? জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হাই ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক জামিন প্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া, ঠেকানো যাচ্ছে না আগ্রাসন পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা কুতুবদিয়ায় পানিতে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু

উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের চিত্র প্রকাশ করা সাংবাদিক পেলেন পুলিৎজার

অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১

চীনের শিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপর সেদেশের সরকারের অবর্ণনীয় নির্যাতনের চিত্র এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে প্রকাশের জন্য এ বছর পুলিৎজার পুরস্কার পেয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত সাংবাদিক মেঘা রাজাগোপালান।

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বিষয়টি জানানো হয়েছে। সাংবাদিক মেঘা রাজাগোপালান যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গণমাধ্যম বাজফিড নিউজে কর্মরত। মেঘাকে ওই প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করার জন্য বাজফিডের সহকর্মী অ্যালিসন কিং এবং ক্রিস্টো বাসচেকও এই পুরস্কার পেয়েছেন।

শিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুরসহ অন্যান্য সম্প্রদায়ের মুসলমানদের আটকে রাখতে গোপনে নির্মিত বন্দিশিবিরের ওপর অনুসন্ধানী প্রতিবেদনটি করেন তারা। তাদের ওই সিরিজ প্রতিবেদনে নির্যাতনের ওসব অবকাঠামো প্রকাশ্যে আসে।

 

বাজফিড নিউজের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে শিনজিয়াংয়ের বন্দিশিবিরে কয়েক হাজার মুসলমানকে আটকে রাখা শুরু করে চীন। ওই বছর মেঘাই প্রথম ওসব শিবিরে যান। যদিও বন্দিশিবিরের অস্তিত্বের অভিযোগ সেসময় বারবার অস্বীকার করেছিল চীন।

মেঘার পুলিৎজার জেতার পর এক প্রতিক্রিয়ায় বাজফিড বলেছে, চীন সরকার মেঘার অনুসন্ধানী কাজ বন্ধ করে দিতে চেয়েছিল। তার ভিসা বাতিল এবং তাকে দেশ থেকে বের করে দিতে চেয়েছিল। পুরো শিনজিয়াং প্রদেশে পশ্চিমা দেশের নাগরিকসহ সাংবাদিকদের প্রবেশ বন্ধ করার উদ্যোগ নিয়েছিল চীন। তখন বন্দিদের নিয়ে প্রাথমিক তথ্য পাওয়াও কঠিন হয়ে পড়ে।

তবে চীন সরকারের এসব বাধার সামনে দমে যাননি মেঘা। কর্মস্থল লন্ডন থেকে দুই কন্ট্রিবিউটরকে সঙ্গে নিয়ে শিনজিয়াংয়ে উইঘুর নির্যাতন নিয়ে প্রতিবেদনের কাজ অব্যাহত রাখেন তিনি।


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন