• শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৩:০৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ঢাকাস্থ শিয়ালকাঠী ইউনিয়ন কল্যাণ সমিতি পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা সমুদ্র নগরী কক্সবাজারে পর্যটকের নিরাপত্তায় কক্স-ক্যাব এমপি আনার খুন: যা উল্লেখ আছে মামলার এজাহারে এমপি আনারকে হত্যা, মরদেহ উদ্ধার আজ কক্সবাজারের অবিসংবাদিত নেতা জিএম রহিম উল্লাহর মৃত্যুবার্ষিকী, সম্পাদকের শ্রদ্ধা নির্বাচনী সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন পোকখালীর এক কর্মী সমর্থক চকরিয়ায় সাঈদি, পেকুয়ায় রাজু ও ঈদগাঁওতে তালেব চেয়ারম্যান নির্বাচিত বাংলাদেশ প্রেসক্লাব ইউএইর দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন সভাপতি মামুনুর রশীদ, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মোরশেদ আলম টেকনাফে আইন শৃংখলা কমিটির সভায় : নির্বাচনকে সামনে রেখে আইন শৃংখলা নিয়ন্ত্রণ রাখুন; ইউএনও আদনান সাগরে ৬৫ দিন মাছ আহরণ বন্ধ, দুশ্চিন্তায় জেলেরা

পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা

ফরিদুল মোস্তফা খান:
আপডেট : রবিবার, ৭ এপ্রিল, ২০২৪

ফরিদুল মোস্তফা খান :


যেখানে বেশির ভাগ মানুষই ঈদের সব কেনাকাটা শেষ করে এখন ব্যস্ত শেষ সময়ের মুদি বাজার করতে। সেখানে পর্যটন রাজধানী কক্সবাজারের আনাছে কানাছে এখনও হাজার হাজার মানুষ রয়েছেন যারা কেনাকাটা দূরে থাক, ঈদের দিন ভালো কিছু খেতে পারবেন কি না, সেটাও জানেন না।
একে একে রমজানের প্রায় সবকটি রোজা শেষ হয়ে গেছে।
তাদের অনেকেই একবেলা ভাল খাবার খেতে পেরেছেন কিনা সন্দেহ রয়েছে।
কারাগার, হাসপাতাল,ক্লিনিক,বস্তি, পাহাড়ের টিলা, জেলে পল্লী, শুটকি পল্লী,রোহিঙ্গা ক্যাম্প সহ জেলার দরিদ্র এলাকার অগনিত গরিব এতিম অসহায় অনাহারী, বুভুক্ষু নারী পুরুষ শিশু বিধবা,বয়স্ক এবং পথশিশু রয়েছেন, যাদের জন্মটাই শুধু দুঃখ কষ্ট আর যন্ত্রণার।
সুখ কি জিনিষ আশেপাশের দাম্ভিক অহংকারী বড়লোকের কাছ থেকে নিজ চোখে দেখে বড় বড় নিশ্বাসে কাটছে তাদের কষ্টের জীবন।
ককসবাজারের বেশিরভাগ ধনির দুলাল,দুলালী, আমলা কামলা,এবং জনপ্রতিনিধিরা তাদের দুঃখ উপলব্ধি তো দুরের কথা মানুষ হিসেবেও গণ্য করেন না।
উখিয়া টেকনাফের গরিবদের ভাংতি টাকা ধরিয়ে দিয়ে সেখানকার মানবতার ফেরিওয়ালা দাবিদার সাবেক এমপি বদিরা বছরের পর বছর গোপনে চাঁদাবাজি প্রকাশ্যে দান খয়রাতের অভিনয় করে
অর্থাৎ গরিবের রক্ত চুষে জেলার ধনীরা আরও ধনী হয়ে যাচ্ছে কক্সবাজারে।
নেতার তকমা লাগিয়ে অনেকেই মাদকের যাদুতে বিত্তহীন থেকে কোটিপতি ভিআইপি সিআইপি হয়ে পর্যটন শহর কক্সবাজার ছাড়িয়ে বন্দর নগরী চট্টগ্রাম, রাজধানী ঢাকা,গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, গুলশান,বনানী,উত্তরা,মিরপুর, সৌদিআরব,দুবাই সহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে স্থায়ী বসতি গড়ে তুলছেন।
ফলে টেকনাফ কক্সবাজারের অনেকেই এখন বাপ দাদার গ্রামের বাড়িতে ঈদ না করে ঈদের জন্য ছুটছেন দেশ বিদেশের ভিভিআইপি এলাকা গুলোতে।
কেউ কেউ বাক্স পুটলা গুছিয়ে সখের নারী নিয়ে নানান বেশে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে ইতোমধ্যে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে উড়াল দিচ্ছে।
যা আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর গুলোর ইমিগ্রেশন সরজমিন পরিদর্শন করলে সত্যতা মিলবে।
অবিশ্বাস্য হলেও সত্য দেশ ছেড়ে বিদেশে ঈদের জন্য উড়াল দেওয়াদের অনেকেই সাথে নিয়ে যান নর্তকি।
ধনীদের ঈদের আনন্দের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে কক্সবাজার শহরের হোটেল মোটেল গেস্ট হাউজ রেস্ট হাউজ গুলো ইতোমধ্যে নববধুর সাজে সজ্জিত হয়েছে।
কেউ কেউ বড় বড় প্লাট বাড়ি এবং হোটেল মোটেল গেস্ট হাউজ রেস্ট হাউজ গুলোর ইনহাউজ বিনোদনের জন্য মাদক আর পতিতার মজুদ করে রেখেছেন।
কক্সবাজার শহরের হোটেল মোটেল থেকে শুরু করে সাংস্কৃতিক কেন্দ্র সন্নিকট কটেজ, কলাতলী গোলচত্তর এবং অনেক হোটেল মোটেল অভ্যন্তরে রাত দিন ২৪ ঘন্টা চলে অসামাজিক কর্মকান্ড।
টুরিস্ট পুলিশের কিছু দুর্নীতিবাজরা তুলেন মাসোহারা।
সেখান থেকে ভাগ পান স্থানীয় টাউট বাটপার দালাল চাটুকার নেতা কেতা আমলা কামলা ও গোয়েন্দা তালিকাভূক্ত অপরাধী সাংবাদিক পরিচয়ী চিহ্নিত সুবিধা ভোগীরা।

এদিকে,কক্সবাজার পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ড সমিতি পাড়া,কুতুবদিয়া পাড়া,বন্দর পাড়া,নাজিরার টেক,নতুন পাড়ায় লক্ষ করলে দেখা যায় চতুর দিকে কক্সবাজার শহরের বড় বড় বিল্ডিং থাকলেও তাদের ঘর গুলোতে একটি সাস্থ্য সম্মত টয়লেট,বিশুদ্ধ পানির নলকূপ,মাথা গুজার মানসম্মত কোন পরিবেশও নেই।
ঘর গুলোর বাসিন্দারা মাঠিতে শুয়ে থাকেন।
নেই তাদের খাট,দামি আসবাপত্র,মাথার উপর একটি সিলিং ফ্যান।
তীব্র এই গরমে মাটিতে গড়াগড়ি করে কাটছে তাদের জীবন।
নিজেদের ক্লান্ত শরীরটা একটু ঠান্ডা করার মত আশেপাশে নেই কোন পুকুর এবং শীতল কোন বৃক্ষ।
মানবেতর জীবন যাপন তাদের।

ঈদ মানে আনন্দ। তবে এই আনন্দ কি সবার জন্য? অনেকের জন্য এই ঈদ আবার বিষাদ ভরা যন্ত্রণার। কেননা, ঈদের দিন যেখানে সবাই নতুন জামা পরে ঈদ করতে বের হবে, সেখানে অনেকেই নতুন পোশাক না কেনায় ঘর থেকেই বের হতে পারবেন না।

ককক্সবাজার শহরের বন্দর পাড়ার কয়েকজন হতদরিদ্র নারী পুরুষ কক্সবাজারবাণীকে জানান, পৌরসভার বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, সরকারি সাহায্য সহযোগিতার কথা তারা মানুষের কাছ থেকে শুনেছন কিন্তু তা কি রকম দেখেন নি কোনদিন।
বিপদে পড়ে সাহায্যের জন্য কয়েকবার কক্সবাজার পৌরসভায় গেছেন, মেয়র সাহেব সেখানে থাকেন না।
লোকজনের কাছে শুনেছেন,তিনি দেশের বাইরে।

কাউন্সিলর সাহেব এতই ব্যস্ত যে দীর্ঘদিনও দেখা মিলে না।মেয়র সাহেবকে ফোন করলে কেউ ধরে না।

স্থানীয় এক হতদরিদ্র পরিবার কক্সবাজারবানীকে জানান, তার দুই মেয়ে। ঈদ উপলক্ষে তাদের জন্য কিছুই কেনাকাটা করতে পারেননি। ঈদ উপলক্ষে কিছু নিয়েছেন কি-না, জানতে চাইলে অশ্রুসিক্ত নয়নে তিনি বলেন, ‘গরিবের আবার কীসের ঈদ?’ নতুন জামা দূরে থাক, কালকে কি খাব, তা-ও ঠিক নাই।’


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন

ই-পেপার

আজকের দিন-তারিখ

  • শনিবার (বিকাল ৩:০৯)
  • ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৭ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি
  • ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)