• সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৬:২৪ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
জনপ্রিয় আলেম ও ইসলামী বক্তা মাওলানা লুৎফুর আর নেই :সর্বত্রে  শোকের ছায়া ঈদগাঁওতে মাওলানা আব্বাসের জানাজায় মুসল্লির ঢল বাইতুল ইজ্জত জামে মসজিদের বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত  বর্নাঢ্য আয়োজনে হোয়াইক্যং ইউনিয়ন সমিতির বার্ষিক মিলন মেলা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন  লামায় মানবজমিন-এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ঈদগাঁওর সুপারি গলির আশপাশ ময়লা আবর্জনায় ভরপুর : ধ্বংস হচ্ছে পরিবেশ  উখিয়ায় আলোচিত সৈয়দ করিম হত্যাকন্ডের আসামী  সালামত উল্লাহ গ্রেফতার : রক্তাক্ত ছুরি ও নিহতের পরিহিত জামা উদ্ধার পুলিশ পদক পেলেন কক্সবাজার পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলাম। পুলিশ সপ্তাহ ২০২৪’ উপলক্ষে পদক পেলেন র‌্যাব-১৫ এর সিইও সহ ৩ কর্মকর্তা টেকনাফ থানার ওসি ওসমান গনির নেতৃত্বে পুলিশের অভিযানে দুইটি অস্ত্র উদ্ধার।

বাবা নুরুল হুদা চৌধুরীর স্বপ্ন পুরনে খেলাধুলায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চাই : রুমেল

মোহাম্মদ ফয়সাল:
আপডেট : বুধবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৪

মোহাম্মদ ফয়সাল :


তরুন প্রজন্মকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে খেলা ধুলা মুখির পাশাপাশি মরহুম পিতার নির্দেশ তথা অসিহত রক্ষা করতেই জেলা ক্রিড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য প্রার্থী হয়েছি।

 

মহান আল্লাহ সহায় থাকলে আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারীর নির্বাচনে বিজয়ী হলে সকলের সহযোগিতায় কক্সবাজার স্টেডিয়ামে বছরে ৩শ ৬৫ দিনের মধ্যে কমপক্ষে ৩শ দিন খেলাধুলার ব্যবস্থা করবো।

 

কথা গুলো বলছেন কক্সবাজারের বিশিষ্ট সমাজসেবক মরহুম ভাষা সৈনিক বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদ আলহাজ্ব নুরুল হুদা চৌধুরীর সুযোগ্য সন্তান আব্দুল আল মাসুদ রুমেল।

 

মঙ্গলবার রাতে কক্সবাজার বদর মোকাম মসজিদের পাশে তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে দৈনিক কক্সবাজারবাণী সম্পাদক ও প্রকাশক ফরিদুল মোস্তফা খান কে দেওয়া এক সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

 

বদর মোকাম স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি আব্দুল আল মাসুদ আরও বলেন,১৯৮৪ সালে আমার পিতা বদর মোকাম স্পোর্টিং ক্লাব প্রতিষ্ঠা করেন।

মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এই ক্লাবের সভাপতি ছিলেন।

বাবার মৃত্যুর পর একমাত্র সন্তান হিসেবে আমি এই ক্লাবের হাল ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছি আব্বার নামে প্রতিষ্ঠিত নুরুল হুদা চৌধুরী ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে জেলায় খেলাধুলায় দান অনুদান উৎসাহ উদ্দিপনা সহ বিভিন্নভাবে অবদান রাখতে।

 

অসম্ভব মিষ্টভাষী ও সৌখিন মনের মানুষ রুমেল বাবার সৃতিচারণ করে বলেন,মরহুম নুরুল হুদা চৌধুরী ছিলেন,কক্সবাজার জেলা প্রাক্তন মহকুমা ক্রিড়া সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

 

তিনি ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত মহকুমা ক্রিড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯২ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত আমার বাবা ছিলেন, জেলা ক্রিড়া সংস্থার সহসভাপতি।

 

কক্সবাজারের সকলের পরিচিত আমার মরহুম বাবা নুরুল হুদা চৌধুরী কক্সবাজার জেলা ফুটবল রেফারি সমিতির সভাপতির পাশাপাশি ক্রিড়া ও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে অবদান রেখেছেন।

জীবদ্দশায় পিতার সন্তান হিসেবে আমার ক্রিড়া পাগল বাবা পরোপকারী নুরুল হুদা চৌধুরী চেষ্টা করেছিলেন আমার জীবনটাকে খেলাধুলায় উৎসর্গ করে দিতে।

 

কিন্তু বাবার মৃত্যুর পর বিবেকের তাড়নায় আমি আর ঘুমাতে পারছি না।

তাই চেষ্টা করছি, এখন থেকে যতদিন বেঁচে থাকবো আমার বাবার সেই নির্দেশ পালন করে খেলা ধুলার জন্য নিজেকে উজাড় করে দিব।

সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান সম্পাদিত


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন