• শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৮:৩১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
বাইতুল ইজ্জত জামে মসজিদের বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত  বর্নাঢ্য আয়োজনে হোয়াইক্যং ইউনিয়ন সমিতির বার্ষিক মিলন মেলা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন  লামায় মানবজমিন-এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ঈদগাঁওর সুপারি গলির আশপাশ ময়লা আবর্জনায় ভরপুর : ধ্বংস হচ্ছে পরিবেশ  উখিয়ায় আলোচিত সৈয়দ করিম হত্যাকন্ডের আসামী  সালামত উল্লাহ গ্রেফতার : রক্তাক্ত ছুরি ও নিহতের পরিহিত জামা উদ্ধার পুলিশ পদক পেলেন কক্সবাজার পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলাম। পুলিশ সপ্তাহ ২০২৪’ উপলক্ষে পদক পেলেন র‌্যাব-১৫ এর সিইও সহ ৩ কর্মকর্তা টেকনাফ থানার ওসি ওসমান গনির নেতৃত্বে পুলিশের অভিযানে দুইটি অস্ত্র উদ্ধার। কুরআনের পথে না চললে পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠা হবে না : ক্বারী আবুল কাসেম সরকার বড় ভাইকে মারধরের ঘটনায় ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আনাছের সাজা আপিলেও বহাল

হ্নীলা চৌধুরী পাড়া রাখাইন পল্লীতে মুখোশধারী স্বশস্ত্র দূবৃর্ত্ত দলের হানা 

জামাল উদ্দীন -কক্সবাজার প্রতিনিধি:
আপডেট : শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২৩


জামাল উদ্দীন -কক্সবাজার প্রতিনিধি:


হ্নীলা চৌধুরী পাড়া রাখাইন পল্লীতে একদল স্বশস্ত্র মুখোশধারী দূবৃর্ত্ত দল স্বর্ণালংকারের দোকানে হানা দিয়ে স্বর্ণ, নগদ টাকা, মোবাইল ও পাওয়ার ব্যাংক লুট করে নিয়ে গেছে। আকস্মিক এই ধরনের ঘটনার পর রাখাইন পল্লীর স্বর্ণকারদের মধ্যে অজানা আতংক সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়,৭ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) বৃষ্টিরাতে সাড়ে ৭টার দিকে এশার নামাজ চলাকালীন ১০/১২জনের মুখোশধারী স্বশস্ত্র দূবৃর্ত্ত দল হ্নীলা চৌধুরী পাড়া রাখাইন পল্লীর দক্ষিণ পাশে ওয়ে দ্রো মং রাখাইনের পুত্র স্বর্ণাকার আই হ্লা মং রাখাইনের বাড়ি ও স্বর্ণের দোকানে প্রবেশ করে। অস্ত্রের মুখে ঘরের সবাইকে জিম্মি করে স্বর্ণের দোকান তল্লাশী ও ভাংচুর করে ১০ভরি স্বর্ণ, ক্যাশে থাকা নগদ ১৮হাজার টাকা, ৩টি এন্ড্রয়েড মোবাইল ও ১টি পাওয়ার ব্যাংক নিয়ে চলে যাওয়ার স্থানীয় লোকজন জড়ো হতে চাইলে স্বশস্ত্র দূবৃর্ত্ত দল ৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে দক্ষিণ দিকে বিলের খোলা মাঠ দিয়ে পশ্চিম দিকে চলে যায়। এদিকে বেড়িবাঁধে বিজিবি টহল দল, প্রধান সড়কে যানবাহন এবং লোকজনের আনাগোনা থাকার পরও এই ধরনের ঘটনা স্থানীয় পেশাদার অপরাধী ছাড়া কারো পক্ষে সম্ভব না।

এলাকার সচেতন মহলের ধারণা, এই রাখাইন পল্লীর পার্শ্ববর্তী এলাকার চিহ্নিত দূবৃর্ত্তদের সহায়তায় এই ধরনের ন্যাক্কারনজক ঘটনা ঘটতে পারে। দূরের কোন দূবৃর্ত্ত এই ধরনের অপরাধীদের সহায়তা না পেলে এই ধরনের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে লুটপাট করার সাহস পাবেনা। এরপর স্থানীয় রাখাইন সম্প্রদায়ের লোকজন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে দূবৃর্ত্ত দলের ছোড়া বুলেটের খালি খোসা উদ্ধার করে। এই ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর এই গ্রামবাসীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের পাশাপাশি আবারো এই ধরনের লুটপাটে হানা দেওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

হ্নীলা ইউনিয়ন জুয়েলার্স ও স্বর্ণাকার মালিক বুসে রাখাইন জানান,আমাদের গ্রামে ৭টি স্বর্ণের নিয়মিত দোকান এবং ১০/১২টি বাড়িতে কাজ করে বিভিন্ন স্থানে স্বর্ণের দোকানের ব্যবসা করে আসছে। আমাদের গ্রামটি বেড়িবাঁধ সংলগ্ন নির্জন গ্রাম। স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা আসা-যাওয়ার পথে ছিনতাই এবং বাড়িতে এসে লুটপাট খুবই দুঃখজনক। আমরা সংখ্যালঘু স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা সরকারের নিকট নিরাপত্তা জোরদারের দাবী জানাচ্ছি।

হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী জানান,আমি মামলার স্বাক্ষীজনিত কারণে কক্সবাজার অবস্থান করছি। এই ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা খুবই দুঃখজনক। এই ঘটনার খবর পেয়ে টেকনাফ মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জকে অবহিত করেছি।

পরে এই ঘটনার খবর পেয়ে টেকনাফ মডেল থানার ওসির নির্দেশে এসআই মনিরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান সম্পাদিত


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন