• রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ১০:৫৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
জনপ্রিয় আলেম ও ইসলামী বক্তা মাওলানা লুৎফুর আর নেই :সর্বত্রে  শোকের ছায়া ঈদগাঁওতে মাওলানা আব্বাসের জানাজায় মুসল্লির ঢল বাইতুল ইজ্জত জামে মসজিদের বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত  বর্নাঢ্য আয়োজনে হোয়াইক্যং ইউনিয়ন সমিতির বার্ষিক মিলন মেলা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন  লামায় মানবজমিন-এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ঈদগাঁওর সুপারি গলির আশপাশ ময়লা আবর্জনায় ভরপুর : ধ্বংস হচ্ছে পরিবেশ  উখিয়ায় আলোচিত সৈয়দ করিম হত্যাকন্ডের আসামী  সালামত উল্লাহ গ্রেফতার : রক্তাক্ত ছুরি ও নিহতের পরিহিত জামা উদ্ধার পুলিশ পদক পেলেন কক্সবাজার পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলাম। পুলিশ সপ্তাহ ২০২৪’ উপলক্ষে পদক পেলেন র‌্যাব-১৫ এর সিইও সহ ৩ কর্মকর্তা টেকনাফ থানার ওসি ওসমান গনির নেতৃত্বে পুলিশের অভিযানে দুইটি অস্ত্র উদ্ধার।

জেটি ঘাটে ভাঙন, ঝুঁকি নিয়ে পারাপার

নাজিম উদ্দিন:পেকুয়া
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২৩


নাজিম উদ্দিন কুতুবী,পেকুয়া


কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া থেকে পেকুয়া যাতায়াতের একমাত্র জেটি ঘাটের বিভিন্ন অংশ ভেঙে পড়ায় নদী পারাপার ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৯৯০ সালের দিকে কুতুবদিয়ায় যাত্রী পারাপারের জন্য পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নে জেটিঘাটটি স্থাপন করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। ২০০৪ সালে চ্যানেলের চরে জেগে ওঠা অংশে জেটি ঘাটটির বাড়তি অংশ সম্প্রসারণ করা হয়। তখন মূল ভূখণ্ড থেকে দীর্ঘ জেটি স্থাপনের পাশাপাশি সীমানায় স্থাপন করা হয় প্লাটফর্ম। উনিশ বছর ধরে এ জেটি ঘাট দিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যে নদী পারাপার করেছে মানুষ। কুতুবদিয়া উপজেলার তিন লাখ মানুষের যাতায়াতের অন্যতম পথ এই ঘাট। প্রতিবছর এটি ইজারা দিয়ে বিপুল রাজস্ব আদায় করেছে সরকার। চলতি অর্থবছরে মগনামা থেকে বড়ঘোপ ঘাট ২ কোটি ৬৫ লাখ, দরবার ঘাট ১ কোটি ৫০ লাখ ও মগনামা জেটি ঘাট ৭০ লাখ টাকায় ইজারা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, প্রতিবছর ৪-৫ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করে দিলেও বরাবরই উপেক্ষিত এ জেটি ঘাট। দীর্ঘদিন ধরে ঘাটের বিভিন্ন অংশ ভেঙেচুরে পড়ে থাকলেও সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। ঘাটের বাতিগুলো বেশিরভাগ অকেজো হয়ে গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, জেটি ঘাটের প্লাটফর্ম ও মূল পথের আটটি অংশে রেলিং ভেঙে বিলীন হয়ে গেছে। ঘাট থেকে নৌযানে উঠানামার সিঁড়ির ইট সুরকি খসে পড়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। দুর্ঘটনা এড়াতে সাধারণ মানুষজন ঘাটে সাবধানে পা ফেলছে। ঘাটের চারটি সিড়ির তিনটিতেই এমন গর্ত রয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন ৪-৫ হাজার মানুষ এ ঘাট ব্যবহার করছে।

কুতুবদিয়া উপজেলার বাসিন্দা নাজিম উদ্দীন বলেন, মগনামা ঘাট দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া থেকে সারাদেশে যাতায়াতের সহজ পথ। কিন্তু ঘাটের এ বেহাল দশা আমাদের চলাচলকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে। রেলিং ধ্বসে পড়ায় যাত্রীদের চলাচল অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। এতে মানুষ নদীতে পড়ে যাওয়ার ঝুঁকি আছে। তাছাড়া সিঁড়ির গর্তে আটকে আহত হবার ঝুঁকি আরো প্রবল। প্রতিদিন ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। ঘাট ব্যবহারে নারী-শিশুদের বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রতিবারই আমরা নির্ধারিত টোল দিয়ে ঘাট পারাপার করি। তাই, জেটি ঘাটটি দ্রুত সংস্কার দাবি করছি।

মগনামা লঞ্চঘাট পরিচালনায় নিয়োজিত ইজারাদার নুরুল ইসলাম বলেন, জেটি ঘাট সংস্কারের জন্য আমরা জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে একাধিকবার অনুরোধ করেছি। কিন্তু এব্যাপারে তাদের কোন উদ্যোগ দৃশ্যমান নয়।

এব্যাপারে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আসিফ আহমেদ বলেন, জেলা বা উপজেলা প্রশাসন আমাদের লিখিতভাবে জানালে ঘাট সংস্কারের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জাহিদ ইকবাল বলেন, নদী পারাপারে মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত জেটি ঘাটটি সংস্কার করা হবে।

সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান সম্পাদিত


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন