• বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
টেকনাফের ওসি ওসমান গনির নেতৃত্বে ইয়াবার বড় চালান উদ্ধার কুতুবজোম দাখিল মাদ্রাসায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত টেকনাফের হ্নীলা স্টেশনে এমপি বদির নিজস্ব অর্থায়নে স্থাপিত মাছ বাজার উচ্ছেদে জনমনে ক্ষু্দ্ধ প্রতিক্রিয়া লামায় জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা পুরুষ্কার বিতরণ সম্পন্ন হুইপ কমল এমপি’র সহকারী একান্ত সচিব পদে নিয়োগ পেলেন মিজানুর রহমান কৃষকদের উৎপাদিত পণ্যের টেকসই মার্কেট লিংকেজ এবং পেশাগত নিরাপত্তা নিশ্চিত বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত চকরিয়ার ওসি নাদিম আলী আবারও কক্সবাজারের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ মনোনীত জমকালো আয়োজনে লামায় দৈনিক সাঙ্গুর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন কুতুবদিয়া লেমশীখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শিক্ষা পদক সংবর্ধনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ডাল্টন জহির FBCCI সিভিল এভিয়েশন অ্যান্ড ট্যুরিজম স্ট্যান্ডিং কমিটি 2023 – 2025 কো চেয়ারম্যান নির্বাচিত

মিডিয়া কোটায় নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী সাংবাদিক ফরিদুলকে ঘিরে বিশ্ববাসীর দৃষ্টি এখন প্রধানমন্ত্রীর দিকে

ডা.মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ
আপডেট : শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২৩

*বিশিষ্ট জনরা বলছেন তাকে নৌকার মনোনয়ন না দিলে বুঝতে হবে সরকার উখিয়া টেকনাফের মাদক, ঘুষ,ও দুর্নীতির মুক্তি চায় না।


ডা.মুহাম্মদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ


কক্সবাজার ৪ উখিয়া টেকনাফ আসনে মিডিয়া কোটায় আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমা দেওয়া কারা নির্যাতিত মজলুম জননেতা বাংলাদেশ আওয়ামী সাংসৃতিকলীগের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য তারকা সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খানের বিকল্প নেই।
দল মত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে উখিয়া টেকনাফের সাধারণ মানুষ তাকে এমপি বানাতে চায়।
মাদক ঘুষ দুর্নীতি ও সন্ত্রাস মুক্ত জনপদ গড়তে তাকে নৌকার এমপি মাঝি হিসেবে দেখতে শুধু উখিয়া টেকনাফবাসী নয়,বিশ্বের পেশাদার সাংবাদিক এবং দেশবাসী তাকিয়ে আছেন গণতন্ত্রের মানসকন্যা বিশ্বনেত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামিলীগের মনোনয়ন বোর্ডের দিকে।

তারা বলছেন,সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খানকে নৌকা দেওয়ার না দেওয়ার মধ্য দিয়ে বিশ্ববাসীর কাছে স্পষ্ট হবে সরকারের কাছে সৎ মানুষ,পেশাদার সাংবাদিক সমাজ ও গণমাধ্যমের মূল্য কতটুকু।

তারা কি আসলেই টেকনাফ কক্সবাজারকে মাদক মুক্ত করতে চায়?’নাকি চলে যাই যুদ্ধে মাদকের বিরুদ্ধে’ শ্লোগানের অন্তরালে অন্য কিছু লুকিয়ে আছে।

জানা গেছে, মজলুম জননেতা নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান  গত ২০ নভেম্বর রোজ সোমবার পরম করুনাময় সর্বশক্তিমান আল্লাহর নামে  নিজ ব্যবহৃত কম্পিউটার পিসিতে বসে অনলাইনে নগদে নিজের মনোনয়ন আবেদন করে তাৎক্ষনিক ফেইসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে উখিয়া টেকনাফ -৪ আসনে মিডিয়া কোটায় নিজের প্রার্থীতার কথা জানান দেন।

এর আগে তিনি দু উপজেলার সাধারণ গরিব অসহায় নির্যাতিত মানুষের বিপদাপদে সুখ দুঃখে পাশে থেকে সাধারণ ভোটারদের নজর কাড়েন।

ফরিদুল মোস্তফা খান জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার কেন্দ্রীয় সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) এর কেন্দ্রীয় নেতা ও সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির কক্সবাজার জেলা শাখার সভাপতি,দৈনিক কক্সবাজার বাণী ও জনতারবাণীর সম্পাদক ও প্রকাশক নির্যাতিত সাংবাদিক।
ডিজিটাল বাংলাদেশের ডিজিটাল পদ্ধতিতে নৌকার মনোনয়ন ফরম জমা দিয়ে ফরিদুল মোস্তফা খান বলেন”পরম করুনাময় সর্বশক্তিমান আল্লাহর নামে আমার সামাজিক গ্রন্থনা কক্সবাজার ৪  উখিয়া টেকনাফবাসীর সেবা করার উদ্দিশ্যে মিডিয়া কোটায় নৌকার মনোনয়নের জন্য বিশ্বনেত্রী মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং দলীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে নগদে আবেদন পাঠালাম।
বাকিটা আল্লাহর হুকুম।
দোয়া চায় সকলের।

নিজেদের প্রিয় সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফার মনোনশন ক্রয়ের সংবাদ মুহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে ছড়িয়ে পড়লে উখিয়া টেকনাফ কক্সবাজার সহ দেশ বিদেশে তার ভক্ত শুভাকাঙ্ক্ষীরা উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়েন।

মন্তব্য প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিক সহকর্মী ছাড়াও সাধারণ মানুষ ফরিদুল মোস্তফার জন্য দোয়া এবং শুভকামনা করেন।

বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক জাতীয় দৈনিক ইত্তেফাকের সাবেক সাব-এডিটর নাসিম আনোয়ার, জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার চেয়ারম্যান লায়ন নুরুল ইসলাম,বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম(বিএমএসএফ)এর সভাপতি আহমেদ আবু জাফর, পরিচ্ছন্ন মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রী কবি লিপিকা লাকী,যুবনেতা ফারুক হোসেন,সহকর্মী মাইদুল ইসলাম,মুহাম্মদ আজিজুল হক আজিজ,তানভীর শাহরিয়া,মুহাম্মদ সেলিম রেজা,রবিউল ইসলাম রাজিব,এবাদুল্লাহ,নুরুল আমিন,মহিউদ্দিন, দৈনিক কক্সবাজার বাণীর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক নাজিম উদ্দিন,জামাল উদ্দিন, রবিউল হাসান,শান্ত ফয়েস,লোয়া হিসাম,কানিজ ফাতেমা,সাইফুল ইসলাম,এমপি বদির সন্তার পরিচয়ী মো: ইসহাক,মো: জসিম,চট্টগ্রাম মহা নগর আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা লিটন,শামশুল আলম,মতিউর রহমান,ফারুক রহমান, শাহজাহান বেপারী,আব্দুল মান্নান,দৈনিক মানবজমীনের মো:আবু মনসুর,শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ কক্সবাজার জেলা সভাপতি মো:রাসেল চৌধুরী সহ অনেকেই নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফার জন্য শুভকামনা করেন।

এদিকে বাংলাদেশের খ্যাতিমান কলামিস্ট সকল জাতীয় দৈনিকের উপসম্পাদকীয় পাতার বিশিষ্ট লেখক ডা.মুহাম্মদ মাহতাব হোসাইন মাজেদ,নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফাকে নিয়ে প্রকাশিত তার এক নিবন্ধে লিখেছেন, –

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চারদিকে বইছে নির্বাচনী হাওয়া সেই হাওয়ায় পাল দিতে মাঠে কাজ করছেন,মিডিয়া কোটায় উখিয়া টেকনাফ সংসদীয় আসনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী সংসদ সদস্য প্রার্থীরা।

আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে উখিয়া টেকনাফ আসনে নতুন ও তরুন প্রজন্মের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনী মাঠ উত্তপ্ত করে দিয়েছেন, নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান।সেখানকার সাধারণ মানুষের পাশাপাশি পৃথীবির আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা পেশাদার সাংবাদিক সমাজ চায় ফরিদুল মোস্তফা খানের মত সৎ যোগ্য ত্যাগী নির্যাতিত মজলুম মেধাবীরা এমপি হোক।

জানা গেছে,জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা কেন্দ্রীয় কর্যনির্বাহী কমিটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ)’র কেন্দ্রীয় নেতা কক্সবাজার সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির জেলা সভাপতি,মাদক ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে আপোষহীন লড়াকু সৈনিক নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফাকে ঠেকিয়ে নৌকার মনোনয়ন বাগিয়ে নিতে জোট বেঁধে টাকা ঢালছে প্রতিপক্ষের মাদক মাফিয়া রাজনৈতিক দুবৃত্ত।
তাদের অনেকেই এখন ঢাকার আকাশে বাতাসে উড়াচ্ছে মাদকের টাকা।কেউ কেউ দলের সিনিয়র নেতাদের পায়ে ধরে বসে আছেন।
কয়কজন ইচড়েফাকা এমপি প্রার্থী নিজেদের বাপ দাদার পরিচয় দিয়ে নেতাদের মন গলানোর চেষ্টার পাশাপাশি তাদের স্ত্রী সন্তানদের সাথে গোপন যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছেন।অনুসন্ধানে দেখা গেছে, এরা ফরিদুল মোস্তফার জনপ্রিয়তার ভয়ে তঠস্থ হয়ে পড়ছেন।
একারণে তারা স্থানীয় নিজেদের দালাল মাদকাসক্ত কথিত সংবাদকর্মীদের নগদে তুষ্ট করে প্রার্থী তালিকায় যেন তার নাম প্রচার না হয় সেই ব্যাবস্থা চালুর পাশাপাশি স্থানীয় বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি সংস্থার সাথে গোপন যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছে।অনেকেই তাদের বিনয়ের সাথে অনুরোধ জানাচ্ছেন, নেত্রীর কাছে নৌকার মনোনয়ন দেওয়ার গোপন প্রতিবেদনে কোন ভাবেই যেন নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফার নাম না পৌঁছে।তাদের কেউ কেউ বলছেন,ফরিদুল মোস্তফা একজন খ্যতিমান সম্পাদক এবং সাংবাদিক নেতা।তার আবার এমপি হওয়া বা রাজনিতি করার দরকার কি?সাংবাদিক আছেন,  থাকুক।রাজনীতিতে আসলে ঝামেলা বাড়বে।
সত্য এবং নির্ভিক সাংবাদিকতায় আপোষহীন জাতির জনক এবং তার পরিবার তথা শেখ হাসিনা সরকার অর্থাৎ প্রকৃত আওয়ামিলীগ পাগল এই সাংবাদিকের প্রতিপক্ষরা নানান ষড়যন্ত্র করলেও তার নির্বাচনী এলাকা উখিয়া টেকনাফের সাধারণ মানুষ ফরিদুল মোস্তফাকে এমপি বানাতে চায়।শুধু সেখানে নয়,পুরো কক্সবাজার তথা দেশের আনাছে কানাছে বাড়ছে ফরিদুল মোস্তফার জনপ্রিয়তা। উখিয়া টেকনাফের হাট বজার, চায়ের দোকান,অলি-গলি বাসা বাড়িতে চলছে ফরিদুল মোস্তফার আলোচনা। চায়ের টেবিল ও গৃহিণীর রান্না ঘরে ঝড় তুলছেন নতুন নেতা বানানোর আগ্রহীরা। স্থানীয় জেলা উপজেলা আওয়ামিলীগের ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের মাদক মুক্ত প্রকৃত ত্যাগী নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ মনে করেন,নেত্রীর কাছে সৎ মানুষের মূল্য বেশি।তাই আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে উখিয়া টেকনাফে ফরিদুল মোস্তফার বিকল্প নেই।
কোন অদৃশ্য কারনে নির্যাতিত সাংবাদিক মজলুম জননেতা ফরিদুল মোস্তফাকে নৌকার মনোনয়ন না দিলে দেশবিদেশে সরকারের মনোনয়ন পদ্ধতি এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মানবতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে।দেশি-বিদেশি পেশাদার সাংবাদিক এবং সাধারণ মানুষ বুঝে নেবে, আওয়ামিলীগে সৎ মানুষের কোন মূল্য নেই সব টাকার খেলা।
রাষ্ট্র যন্ত্র আসলে উখিয়া টেকনাফ ও কক্সবাজার মাদকমুক্ত হোক সেটা চায়না।
কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যাক্তি এবং পরিচ্ছন্ন প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা বলেছেন,উখিয়া টেকনাফের সাধারণ মানুষ গত ১৫ বছর সাবেক এমপি বদি এবং তার পরিবারের কাছ থেকে কোন কিছুই পায়নি।।মাদক,মাবপাচার, স্বর্ণ চোরাচালান,হুন্ডি ব্যবসায় একক আধিপত্যপত্ব বিরাজ এবং গোপনে চাঁদাবাজি প্রকাশ্যে দান খয়রাতের অভিনয় করে তারা দু উপজেলার ধনীদের আরও ধনী এবং গরীবদের ভিক্ষুক বানিয়ে রেখেছেন।মিডিয়া কোটায় উখিয়া টেকনাফে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা বলেছেন,মনোনয়নের জন্য জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত আবেদন জমা দেওয়া আছে।
নেত্রী এবং দলীয় মনোনয়ন বোর্ড ডেকে নিয়ে যদি বিনা পয়সায় নৌকা প্রতীক দেন অবশ্যই নির্বাচন করবো ইনশাআল্লাহ।সাংবাদিকতার দুই  যুগেরও বেশি সময় ধরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড নিয়ে যে সব লেখালেখি এবং প্রচার প্রচারনা করেছি,তার অর্ধেকও স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং বর্তমান নৌকার মনোনয়ন পর্ত্যাশীদের কেউ করেন নি।তারা সরকারের প্রচার  প্রচারনার চেয়ে নিজেদের প্রচার প্রচারণা বেশি করে ব্যবসা বানিজ্য এবং মাদক ও মাফিয়া রাজনীতি করে সেখানকার সাধারণ মানুষের রক্ত চুষে খেয়েছেন।১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আমার জন্ম হলে আমি হয় শহীদ নয়,বীর মুক্তিযোদ্ধা হতাম।দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করার জন্য সবসময় কলম যুদ্ব চালিয়েছি।এখনো চালিয়ে যাচ্ছি।ওজান ঠেলে নিজের আজকের এই অবস্থানের কথা বলে নির্যাতিত সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা আরও বলেন,আশা করি নেত্রী এবং আওয়ামিলীগের মনোনয়ন বোর্ড আমাকে মূল্যায়ন করে মানুষের সেবা করার সুযোগ দিবেন।মানীয় প্রধানমন্ত্রী এবং তার পরিবার নিজেই একটি মজলুম পরিবার হওয়ায় নিশ্চয় তিনি উখিয়া টেকনাফের মানুষের জন্য আমাকে নৌকার মনোনয়ন দিয়ে সাধারণ মানুষের আশা আকাংকার প্রতিফলন ঘটিয়ে মাদক ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে নিজের অবস্থান পরিস্কার করবেন।আমি আশা করি, মনোনয়ন বোর্ডের নীতি নির্ধারকরা টাকার কাছে,বেচা না গিয়ে আমার প্রতি জুলুম করবেন না।
এদিকে, কক্সবাজার ৪ উখিয়া টেকনাফ আসনে নির্যাতিত সাংবাদিক মজলুম জননেতা ফরিদুল মোস্তফা
খানকে মিডিয়া কোটায় নৌকার মনোনয়ন দিতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বোর্ডকে অনুরোধ জানিয়েছেন দেশি বিদেশি বিভিন্ন
পেশাদার সাংবাদিক সংগঠন ও বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গরা।কারণ স্বাধীনতা স্বপক্ষীয় বাংলাদেশের এই তুখোড় মেধাবী সাংবাদিক নেতার নির্বাচনী এলাকায় রয়েছে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা ও গ্রহণ যোগ্যতা।দল-মত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সব শ্রেণী পেশার মানুষের কাছে  অন্যায়ের প্রতিবাদী সাংবাদিক হিসেবে শুধু নয়।
জাতির জনকের অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা চেতনায় উজ্জীবিত সাংবাদিক সমাজের এই সম্ভাবনাময়ী আইকনের জন্য রয়েছে ব্যাপক জনসমর্থন।সুশীল সমাজ বলেছেন, মিডিয়া রাষ্ট্রের চতুর্থ স্থম্ভ।

 

সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফা খান সম্পাদিত


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন