• বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ঈদগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩টি পদে মোট ১৭জনের মনোনয়নপত্র দাখিল লাঞ্ছিত জীবনগাঁথা ঈদগাঁওতে ডিসি ও এস পি, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে ঈদগাঁওতে নতুন পুরাতন প্রার্থীদের দৌঁড় ঝাঁপ ইয়াবা ও দালালীর জাদুতে আলাদীনের চেরাগপ্রাপ্ত কথিত সাংবাদিক নেতা কেতারা কি আইনের উর্ধ্বে? জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হাই ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক জামিন প্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া, ঠেকানো যাচ্ছে না আগ্রাসন পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা কুতুবদিয়ায় পানিতে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু

লাখ টাকায় মিলে ফুলছড়ি বনের মালিকানা!

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২০

কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের ফুলছড়ি বন বিটের আওতাধীন জুম নগর এলাকায় ২০১৭-১৮ সালে সৃজিত বনায়নে প্লট আকারে বিক্রির কান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ রাজনৈতিক পরিচয়ে বেশ কিছু নেতা এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পরিচয়ে দখলদারদের বিরুদ্ধে।

এখানে ১২০ একরের বেশি বনভূমি বেদখল হয়েছে এরই মধ্যেই। কয়েক কোটি টাকা চারাগাছ কেটে ধ্বংস করে সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে বাড়িঘর।

বনবিভাগ কয়েকবার নাম মাত্র উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে দায় সেরেছেন। তবে বনবিভাগ এখন রহস্যজনক ভাবে নিরব ভুমিকা পালন করছে।

ফুলছড়ি রেঞ্জের আওতাধীন ফুলছড়ি বন বিটের অধীনে হাজার হাজার একর বন ভূমির মালিক ছিল বনবিভাগ।

বর্তমানে তা কমে দাঁড়িয়েছে প্রায় শত একরে।

ধীরে ধীরে গাছ কেটে বন উজাড়, রাতারাতি পলিথিন কিংবা বাশের বেড়া দিয়ে তুলে সরাসরি দখল এবং বন কর্মকর্তাদের হাত করে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় বেদখল।

যেখানে সরকারি গাছ কাটাই নিষেধ সেখানে বনায়নের ভেতর প্রকাশ্যে তারা কাটছে তাজা চারা গাছ ও অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলছে।

স্থানীয়রা জানান, লাখ লাখ টাকা রেঞ্জ কর্মকর্তা ও বিট কর্মকর্তাকে দিলেই সব করা যায়।

সবাই ভাগ নেয় টাকার।গত কয়েকদিনে ২০১৭-১৮ সালে সৃজিত বনায়নের কোটি টাকার চারাগাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এখন চারাগাছের গুড়ালিগুলো স্বাক্ষী হয়ে আছে।

ফুলছড়ির বিট কর্মকর্তা আকরাম উল্লার সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এবিষয়ে ফুলছড়ি রেঞ্জ কর্মকর্তা মাজাহারুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, গত কয়েক দিনে একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে, সামনে আরো অভিযান চলবে।


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন