• সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
লাঞ্ছিত জীবনগাঁথা ঈদগাঁওতে ডিসি ও এস পি, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে ঈদগাঁওতে নতুন পুরাতন প্রার্থীদের দৌঁড় ঝাঁপ ইয়াবা ও দালালীর জাদুতে আলাদীনের চেরাগপ্রাপ্ত কথিত সাংবাদিক নেতা কেতারা কি আইনের উর্ধ্বে? জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হাই ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক জামিন প্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া, ঠেকানো যাচ্ছে না আগ্রাসন পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা কুতুবদিয়ায় পানিতে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু টেকনাফ অপরাধ নিয়ন্ত্রণে স্থানীয়দের সহায়তা চাইলেন এসপি মাহফুজ

আবু ছৈয়দ হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত ৬ আসামীর ৩দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

নাজিম উদ্দিন:পেকুয়া
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২৩


নাজিম উদ্দিন (কুতুবী) পেকুয়া প্রতিনিধি,


কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নে সংগঠিত চাঞ্চল্যকর আবু ছৈয়দ হত্যা মামলার ছয় আসামীকে তিনদিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত।

বুধবার দুপুরে চকরিয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাকিম মোঃ জাহিদ হোসাইন এ আদেশ দেন।

আদালত সূত্র জানায়, তদন্তের স্বার্থে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) মোহাম্মদ ইব্রাহিম জেল হেফাজতে থাকা ছয় আসামীর সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন। বুধবার আদালত শুনানি শেষে আসামীদের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ডে নেওয়া আসামীরা হলেন, মগনামা ইউনিয়নের রুস্তম আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন (৫০), আনোয়ার হোসেনের ছেলে গিয়াস উদ্দিন সোনামিয়া (৩২), কামাল হোসেনের ছেলে জয়নাল আবেদিন জনু (৩৫), মো. তৈয়ব (২০), আনোয়ার হোসেনের ছেলে মহিউদ্দিন গুরাইয়া (২৫) ও কামাল হোসেনের ছেলে মো. আরিফ (২৪)।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) পেকুয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, আদালতের নির্দেশে আসামীদের পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। হত্যাকাণ্ডের কারণ অনুসন্ধান ও জড়িতদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সকল আসামীকে আইনের আওতায় আনা হবে।

উল্লেখ্য, গত ১০ অক্টোবর বিকেলে ঘরে ঢুকে কুপিয়ে ও গুলি করে যুবক আবু ছৈয়দকে (৩৮) গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা। এসময় সন্ত্রাসীরা আবু ছৈয়দের একটি পা কেটে নিয়ে উল্লাস করতে করতে ঘটনাস্থল ছেড়ে চলে যায়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান যুবক আবু ছৈয়দ। হামলার সময় তাকে রক্ষা করতে গিয়ে তার স্ত্রীসহ চার জন আহত হন। ঘটনার পরদিন নিহতের ছেলে ছৈয়দ মোহাম্মদ ইমন বাদী হয়ে ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয়ের ৪-৫ জনকে আসামি করে পেকুয়া থানায় হত্যা মামলা করেন। এ মামলার ১১ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও র‌্যাব।


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন