• সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
লাঞ্ছিত জীবনগাঁথা ঈদগাঁওতে ডিসি ও এস পি, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে ঈদগাঁওতে নতুন পুরাতন প্রার্থীদের দৌঁড় ঝাঁপ ইয়াবা ও দালালীর জাদুতে আলাদীনের চেরাগপ্রাপ্ত কথিত সাংবাদিক নেতা কেতারা কি আইনের উর্ধ্বে? জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হাই ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক জামিন প্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া, ঠেকানো যাচ্ছে না আগ্রাসন পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা কুতুবদিয়ায় পানিতে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু টেকনাফ অপরাধ নিয়ন্ত্রণে স্থানীয়দের সহায়তা চাইলেন এসপি মাহফুজ

বেড়িবাধঁ ভাঙ্গার ফলে লোকালয়ে পানি

মোঃ নাজিম উদ্দিন: পেকুয়া প্রতিনিধি
আপডেট : রবিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২৩

মোঃ নাজিম উদ্দিন (কুতুবী) পেকুয়া প্রতিনিধি,

কক্সবাজারের পেকুয়া সদর ইউনিয়নের মেহেরনামা এলাকায় বেড়িবাঁধের ভাঙা অংশ দিয়ে পাহাড়ি ঢলের পানি লোকালয়ে প্রবেশ করেছে। এতে ফের পানিবন্ধী হয়ে পড়েছে ইউনিয়নের প্রায় অর্ধ লক্ষ মানুষ। অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারণে গত ২৪ ঘণ্টা ধরে মাতামুহুরী নদীর পানি বেড়ে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, পেকুয়া সদর ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ গ্রামীণ সড়কগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে মাতামুহুরি নদীর পাহাড়ি ঢলের পানি ঢুকে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের মেহেরনামা, বলির পাড়া, সাঁকোর পাড়, চৈরভাঙা, চড়া পাড়া, সরকারী ঘোনা, সাবেক গুলদি, মাতবর পাড়া ও হরিণাফাঁড়ি গ্রামের অধিকাংশ বাড়িঘর তলিয়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, অতিবৃষ্টির কারণে চলতি মাসের শুরুতে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছিলো পেকুয়া উপজেলার তিন লাখ মানুষ। ওই সময় ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ যথাসময়ে সংস্কার করা হলে ফের বানের পানি ঢুকতে পারতো না। স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের অবহেলার কারণে আবার প্লাবিত হয়েছে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের মানুষ।

স্থানীয় বাসিন্দা নাছির উদ্দীন বাদশা বলেন, গত বন্যার পানি নেমে যাওয়ার দুই সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও বেড়িবাঁধ সংস্কারে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। সদিচ্ছা থাকলে এক মাসের মধ্যে দুইবার বন্যা দেখা লাগতো না সাধারণ মানুষের। পরপর এই বন্যার কারণে কৃষকরা চাষাবাদ করতে পারছেন না। এতে অন্তত ২৫ হাজার মানুষ প্রত্যক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবেন।

পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূর্বিতা চাকমা বলেন, বেড়িবাঁধের এই অংশটি ছাড়া অপর অংশ গুলো সংস্কার করা হয়েছে। বেড়িবাঁধের সংস্কার কাজ চলমান ছিলো। বৃষ্টির কারণে কাজ ধীরগতিতে চলছিলো।

পেকুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, অতিবৃষ্টির কারণে বেড়িবাঁধ সংস্কার কাজ বন্ধ হয়ে পড়েছিলো। একইসাথে মাতামুহুরি নদীর পাহাড়ি ঢলের পানি বেড়িবাঁধের ভাঙা অংশ উপচে লোকালয়ে প্রবেশ করেছে। বৃষ্টি কমলেই বেড়িবাঁধের সংস্কারকাজ শুরু করা হবে।


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন