• বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১০:২০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ঈদগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩টি পদে মোট ১৭জনের মনোনয়নপত্র দাখিল লাঞ্ছিত জীবনগাঁথা ঈদগাঁওতে ডিসি ও এস পি, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে ঈদগাঁওতে নতুন পুরাতন প্রার্থীদের দৌঁড় ঝাঁপ ইয়াবা ও দালালীর জাদুতে আলাদীনের চেরাগপ্রাপ্ত কথিত সাংবাদিক নেতা কেতারা কি আইনের উর্ধ্বে? জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হাই ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক জামিন প্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া, ঠেকানো যাচ্ছে না আগ্রাসন পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা কুতুবদিয়ায় পানিতে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু

কাঞ্চন আইসের বিরুদ্ধে ফটোগ্রাফার দের কার্ড জালিয়াতির অভিযোগ।

কক্সবাজারবানী’র সাথে থাকুন
আপডেট : সোমবার, ২৪ জুলাই, ২০২৩

ফটোগ্রাফারদের একটি কার্ডে নাম একজনের ছবি আরেকজনের এখন কার্ড গুলো হয়ে গেছে সম্পুর্ন ভূয়া ও দুই নম্বর যার ছবি সেও দাবি করতে পারেনা, যার নাম সেও দাবি করতে পারেনা।এভাবেই পর্যটন সেলের অফিস সহকারি প্রিয়তোষ ও দালাল সিন্ডিকেট কাঞ্চনের মাধ্যমে অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে সাধারন ফটোগ্রাফারদের কার্ড ছয় নয়ের মাধ্যমে তছনছ করা হচ্ছে কার্ড গুলো।অনেকেই আবেদন করে কার্ড পাইনা সিন্ডিকেট ভুক্ত দালাল “কাঞ্চন কে টাকা দিলে আলাউদ্দিনের আশ্চর্য প্রদিপের মত মিলেছে কার্ড এছাড়া তার বিরুদ্ধে রয়েছে অসংখ্য প্রতারনা ও কার্ড জালিয়াতির অভিযোগ যার মধ্যে রয়েছে ৪৬৪ নম্বর কার্ডকে দুটি নাম্বার করে দুইজনের কাছে দেওয়া হয় । এদিকে ভুক্তভোগী মনির হোসেন জানান তার নামে কার্ড ইস্যু করে কাঞ্চন অন্যজনকে বিক্রি করে দে যিনি কার্ড কিনেছেন তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান কাঞ্চনের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকায় কিনেছেন কাঞ্চনের কাছে জানতে চাইলে তিনি অকপটে স্বীকারও করলেন ২৫ হাজার টাকায় তিনি বিক্রি করে দিয়েছে ঠিক তেমনি আর একজন ভুক্তভোগী হাবিবুর রহমান কাঞ্চন তার কাছ থেকে কার্ড নবায়ন করার কথা বলে ৭ হাজার টাকা নেই কয়েক বছর ধরে কার্ড খানা দেয়নি টাকাও দেয়নি কার্ড চাইলে ২০হাজার টাকা দিলে কার্ড দেওয়া হবে বলে জানান ইতিপূর্বে আরো? চার জন ভুক্তভোগী ছিলেন প্রতিবন্ধী মিন্টু ব্যানার্জি তার কার্ড ও চারপাঁচ ছয় বছর ধরে দালাল সিন্ডিকেট দের হাতে ছিল দেশের স্বনামধন্য জাতীয় পত্রিকা দৈনিক নাগরিক ভাবনায় খবর প্রকাশিত হওয়ার পর মিন্টু ব্যানার্জির কার্ড খানা ফেরত দেওয়া হয় ও পরে ইলিয়াস নামে আরো একজনের কার্ড অন্যজনের কাছে বিক্রি করে ওই দালাল সিন্ডিকেট । এই কার্ডের ব্যাপারে জেলা প্রসাশক বরাবরে অভিযোগ করার পরে কর্তব্যরত ম্যাজিষ্ট্রট মাসুম বিল্লাহ অভিযোগের বিত্তিতে কার্ড খানা জব্দ করেন এবং প্রকৃত মালিকের নিকট হস্তান্তর করেন। আরো দুজন হচ্ছে বদি আলম ও রাজধানী স্টুডিও মালিক টু্ন্টু বাবু তাদের কার্ড ও কাঞ্চন আইস অনেক দিন ধরে ভোগ করে পরে প্রতিবেদকের সাথে বিষয় টি শেয়ার করলে সমঝোতার ভিত্তিতে একজন কে ৪০হাজার ও আরেক জনকে ৩০ হাজার টাকা দেন এভাবে অনেকের সাথে তারা কার্ড বানিজ্য প্রতারনা ও জালিয়াতি করে অনেক কেই সর্ব শান্ত করেছেন বলে জানা যাই, অন্য দিকে বিকাশ নামের একজন ও উত্তম কুমার রায় হাফেজের বিরুদ্ধে কার্ড জালিয়াতি র অভিযোগ আনলেও হাফেজ কার্ড গুলো কিনেছেন বলে জানান ও তার কাছে বৈধ দলিল স্টাম্প আছে বলে জানান এবং তিনি আরও বলেন এরা আমার সাথে প্রতারনা করছে এবং আমাকে অহেতুক হয়রানি করছে, এভাবে দালাল চক্র নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য নানা কৌশলে অফিস সহকারী প্রিয়তোষ কুমারের সাথে হাত করে নির্বিঘ্নে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের অপরাধ কর্ম কান্ড, কারন প্রিয়তোষ কুমার কার্ড গুলো তৈরি করেন ইচ্ছা মত নাম ঠিকানা ছবি বসিয়ে কার্ড গুলো তাদের হাতে তুলে দেন আর তারা ইচ্ছা মত কার্ড বানিজ্য করেছেন এ বিষয়ে প্রিয়তোষ কুমারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান” যারা কার্ড গুলো কিনেছেন তাদের ছবি বসিয়ে দিয়েছি প্রিয়তোষের কাছে কার্ড নবায়নের টাকা ব্যাংকে জমা হওয়ার পর আপনি যে টাকা নেন সেটা কিসের টাকা জানতে চাইলে তিনি বলেন” আমি কোন টাকা নেই না”। কিন্তুু প্রতিবেদকের কাছে তার টাকা নেওয়ার অডিও ভিডিও রেকর্ড আছে। এবং এ বিষয়ে পর্যটন সেলের কর্তব্যরত সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ জাদী মাহবুবা মঞ্জুর মোনা সাথে সাক্ষাৎ কারের জন্য গেলে তিনি জানান “কার্ড গুলো যেহেতু নবায়ন করা হচ্ছে আমরা যাচাই বাছাই করে দেখব এবং যেগুলোর বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে সে কার্ডের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্হা নেব” ভুক্ত ভোগীদের দাবি যিনি কার্ডের মালিক তিনি ব্যতীত অন্য কেউ যেন কার্ড নবায়ন করে পর্যটন সেল থেকে নিতে না পারে সেই দাবি জাসনাচ্ছি জেলা প্রশাসনের নিকট এ বিষয়ে।
আরও বিস্তারিত জানতে চোখ রাখুন দৈনিক কক্সবাজার বানী তে


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন