• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
লাঞ্ছিত জীবনগাঁথা ঈদগাঁওতে ডিসি ও এস পি, নির্বাচন সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসন বদ্ধপরিকর উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে ঈদগাঁওতে নতুন পুরাতন প্রার্থীদের দৌঁড় ঝাঁপ ইয়াবা ও দালালীর জাদুতে আলাদীনের চেরাগপ্রাপ্ত কথিত সাংবাদিক নেতা কেতারা কি আইনের উর্ধ্বে? জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন পুলিশ পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হাই ৩১ দিন পর অক্ষত অবস্থায় মুক্ত জাহাজসহ জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক জামিন প্রাপ্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া, ঠেকানো যাচ্ছে না আগ্রাসন পেটে ভাত নেই,”গরিবের আবার কিসের ঈদ” কক্সবাজারে মাদক পতিতার মজুদ,আনন্দ বাড়াতে উড়াল দিচ্ছে ধনীরা কুতুবদিয়ায় পানিতে ডুবে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু টেকনাফ অপরাধ নিয়ন্ত্রণে স্থানীয়দের সহায়তা চাইলেন এসপি মাহফুজ

মিনা বাজারে প্রবাসীর কোটি টাকার চিংড়ি ঘের জবর দখল করে শশস্ত্র সন্ত্রাসীদের রাম রাজত্ব : প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : শনিবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কাগজে কলমে চিংড়ি ঘেরের মালিক টেকনাফের হোয়াইক্যং মিনাবাজার জনৈক মীর কাশেমের পুত্র সৌদি প্রবাসী কামাল হোসেন গংয়ের।
ফলে উক্ত চিংড়ি ঘেরটি দীর্ঘ দিন ভোগ দখল ও করছিল তারা।
কিন্তু দুর্ভাগ্য, বর্তমান সেই চিংড়ি ঘেরের ধারে কাছেও যেতে পারছেন না ঘেরের প্রকৃত মালিক কামাল হোসেন গং।
কারন এলাকায় জন্মগত ভাবে নীরহ ও শান্তি প্রিয় হওয়ায় একই এলাকার দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও প্রভাবশালী জেল ফেরত মাদক সন্ত্রাসী নান্নু গং গায়ের জোরে চিংড়ি ঘেরটি দখল করে নিয়েছে প্রায় বছর দেড়েক হচ্ছে।
জানাগেছে,হোয়াইক্যাং ইউনিয়নের মিনা বাজার বাস স্টেশনে পুবে নাফ নদীর কাছাকাছি অবস্থিত এই চিংড়ি ঘেরের পরিমান ৩ একর ৬০ শতক প্রায়।
মুল্য কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে।
অভিযোগ উঠেছে সম্পুর্ণ বাহু বলে জবর দখলকৃত এই চিংড়ি ঘের লুটপাটের জন্য এলাকায় ভুমিগ্রাসী খ্যাত নুরুল ইসলাম নান্নুর নেতৃত্ব রয়েছে সর্বদলীয় শক্তিশালী একটি শ-শস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ।
সেখানে অস্ত্র শস্ত্রের মহড়ার পাশাপাশি পুরো এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে চলছে তারা।
এই চক্রে স্থানীয় কয়েকজন পাতি নেতা আছে বলে গুঞ্জন উঠেছে।
যাদের ইশারায় মিনাবাজার,ঝিমংখালী ও আশপাশের এলাকায় মাদক ব্যাবসা সহ রাষ্ট্রদ্রোহী সব অবৈধ কর্মকাণ্ড চলে।
হোয়াইক্যং ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমেদ আনোয়ারী জানান,মিনা বাজারে চিংড়ি ঘের জবর দখলের বিষয়টি আমি সমাধান করে দিতে চেয়েছিলাম।
কিন্তু ভুমিগ্রাসীরা আমার বিচার মানেনা। তাই ভুক্তভোগী চিংড়ি ঘেরের মালিককে শালিসী রোয়েদাদ দিয়ে দিছি।
ইউপি চেয়ারম্যানের শালিসী রোয়েদাদ হাতে পেয়ে এখনো ন্যায় বিচারের জন্য দিকবেদিক ছুটে চলছেন প্রবাসী কামাল হোসেনের স্ত্রী রাবেয়া বেগম।
তিনি বলেন, সন্ত্রাসীরা শুধু তার চিংড়ি ঘের জবর দখল করেননি, তাদেরকে এলাকায় ও যেতে দিচ্ছেনা।
স্ব পরিবারে প্রতিনিয়ত মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।
এই অবস্থায় অসহায় রাবেয়া বেগম ও তার পরিবার সন্ত্রাসীদের হাত থেকে বাঁচতে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ রেব,পুলিশ, বিজিবি সহ আইনজীবী শৃঙ্খলা বাহিনীর জরুরি হস্তক্ষেপ চান।
নিজেদের বেদখল হওয়া চিংড়ি ঘেরটিও উদ্ধার করে দিতে প্রশাসনের মানবিক সহায়তা চান রাবেয়া বেগম।


আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন